অস্থির পুঁজিবাজার নির্বাক গ্রাহক

অস্থির পুঁজিবাজার নির্বাক গ্রাহক

নিউ সিলেট ডেস্ক : নির্বাচনের বছরকে ঘিরে জনমনে আস্থা যোগাতে দেশের প্রত্যেকটি সেক্টরে উন্নয়নের ছোঁয়া লেগেছে। কিন্তু ভিন্ন চিত্র পুঁজিবাজারের। টানা দর পতন ও লেনদেন মন্দা বিগত ১ বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন অবস্থানে নেমে এসেছে দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সার্বিক মূল্য সূচক। পাশাপাশি সামান্য বিরতিতে বিগত ১৫ কার্যদিবসের ধারাবাহিক পতনে বাজারের ৪৬.৭৩ শতাংশ বা ১৪৩টি কোম্পানির শেয়ার দর বিগত এক বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন পর্যায়ে নেমে এসেছে।
পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ১৯৯৬ সালের শেয়ার কেলেঙ্কারি ও ২০১০ সালের ধসের কারণে দুর্নাম কুড়িয়েছে আওয়ামী সরকার। তাই বর্তমান পুঁজিবাজারের ২৮ লাখ বিনিয়োগকারীর আস্থা কুড়াতে নির্বাচনের আগে পুঁজিবাজারে স্থিতিশীলতা ফেরাতে হবে।
তারা বলেন, ভোটের রাজনীতির বড় ব্যবধান গড়ে দিতে পারে পুঁজিবাজার। কারণ, এ সেক্টরে ২৮ লাখ বিনিয়োগকারী থাকলেও প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে এ সেক্টরের সাথে প্রায় ১ কোটি মানুষ জড়িত।
তথ্যানুসন্ধানে দেখা যায়, গত ২৬ এপ্রিলের পর থেকে টানা দর পতনে ভুগছে পুঁজিবাজার। এসময় ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সার্বিক মূল্য সূচক ডিএসইএক্স কমেছে ৪৫২.৭০ পয়েন্ট। অপরদিকে, চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সাধারণ মূল্য সূচক কমেছে ৭৯০.০৭ পয়েন্ট।
অনুসন্ধানে দেখা যায়, ২৬ এপ্রিল ডিএসইতে বাজার মূলধন ছিল ৪ লাখ ৪ হাজার ৬৬৭ কোটি ৬৪ লাখ টাকা। কিন্তু অব্যাহত দর পতনে গতকাল বুধবার দিন শেষে ডিএসই’র বাজার মূলধন দাঁড়িয়েছে ৩ লাখ ৮৩ হাজার ৭২ কোটি ১০ লাখ টাকা। অর্থাৎ বিগত ১৬ কার্যদিবসে বাজার মূলধন কমেছে ২১ হাজার ৫৯৫ কোটি ৫৪ লাখ টাকা।
বিশ্লেষণে দেখা যায়, বর্তমানে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) করপোরেট বন্ড, ডিবেঞ্চার ও মিউচুয়্যাল ফান্ড ব্যাতীত ৩০৬টি কোম্পানি রয়েছে। ধারাবাহিক পতনে গতকাল বুধবার দিন শেষে ১৪৩টি কোম্পানির শেয়ারের দর বিগত ১ বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন অবস্থানে নেমে এসেছে। অর্থাৎ বাজারের ৪৬.৭৩ শতাংশ কোম্পানির শেয়ার দর সর্বনিম্ন অবস্থানে নেমে এসেছে।
কোম্পানিগুলো হলো- আমরা টেকনোলজিস, এসিআই, একমি ল্যাবরেটরিজ, একটিভ ফাইন কেমিক্যালস, আফতাব অটোস, অগ্নি সিস্টেমস, আল-হাজ্ব টেক্সটাইল মিলস, অলটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ, আমান ফিড, এপেক্স ফুটওয়্যার, এপেক্স ট্যানারি, অ্যাপলো ইস্পাত, এরামিট, এশিয়া ইন্স্যুরেন্স, বারাকা পাওয়ার, ব্যাংক এশিয়া, বাটা সু, বে-লিজিং অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট, বাংলাদেশ বিল্ডিং সিস্টেমস, বিডি ফাইন্যান্স, বাংলাদেশ ল্যাম্পস, বিচ হ্যাচারি, বিকন ফার্মাসিটিক্যালস, বাংলাদেশ জেনারেল ইন্স্যুরেন্স, বাংলাদেশ ইন্ডাস্ট্রিয়াল ফাইন্যান্স, বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি, ব্র্যাক ব্যাংক, বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশন, বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবলস, বিএসআরএম স্টিল, বেঙ্গল উইন্ডসর থার্মপ্লাস্টিকস, সেন্ট্রাল ফার্মাসিটিক্যালস, সেন্ট্রাল ইন্স্যুরেন্স, সিএনএ টেক্সটাইল, কন্টিনেন্টাল ইন্স্যুরেন্স, ঢাকা ডাইং, ডেল্টা স্পিনিং, দেশ বন্ধু পলিমার, ঢাকা ব্যাংক, ঢাকা ইন্স্যুরেন্স, দেশ গার্মেন্টস, ডোরিন পাওয়ার, ইস্টল্যান্ড ইন্স্যুরেন্স, এমারেন্ড অয়েল, এনভয় টেক্সটাইল, ফ্যামিলি টেক্স (বিডি), ফার কেমিক্যাল, ফারইস্ট ফাইন্যান্স, ফাস ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট, ফেডারেল ইন্স্যুরেন্স, ফারইস্ট নিটিং অ্যান্ড ডাইং, ফার্স্ট ফাইন্যান্স, ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক, ফরচুন সুজ, ফু-ওয়াং সিরামিক, জিবিবি পাওয়ার, জেনারেশন নেক্সট, গোল্ডেন হার্ভেস্ট এগ্রো, গ্লাক্সো স্মিথক্লাইন, গ্লোবাল ইন্স্যুরেন্স, গোল্ডেন সন, জেকিউ বলপেন, জিএসপি ফাইন্যান্স, হাইডেলবার্গ সিমেন্ট, হা-ওয়েল টেক্সটাইল, ইফাদ অটোস, আইডিএলসি ফাইন্যান্স, ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন বাংলাদেশ, আইসিবি ইসলামী ব্যাংক, আইএফআইসি ব্যাংক, ইনটেক অনলাইন, আইপিডিসি ফাইন্যান্স, ইসলামী ব্যাংক, ইসলামিক ফাইন্যান্স, যমুনা ব্যাংক, কর্ণফুলি ইন্স্যুরেন্স, খান ব্রাদার্স পিপি ওভেন ব্যাগ, কেডিএস ইন্ডাস্ট্রিজ, কেয়া কসমেটিকস, লংকা বাংলা ফাইন্যান্স, লিন্ডে বাংলাদেশ, ম্যাকসন স্পিনিং, মালেক স্পিনিং, মার্কেন্টাইল ব্যাংক, মুজাফ্ফর হোসেন স্পিনিং, মিথুন নিটিং, মবিল যমুনা, অলেম্পিক এক্সেসরিজ, অলেম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজ, ওয়ান ব্যাংক, ওরিয়ন ইনফিউশন, ওরিয়ন ফার্মা, ন্যাশনাল ব্যাংক, ন্যাশনাল ফিড মিলস, নর্দান ‍জুট, নর্দান জেনারেল ইন্স্যুরেন্স, নূরানী ডাইং, পদ্মা লাইফ ইন্স্যুরেন্স, প্যারামাউন্ট ইন্স্যুরেন্স, পিপলস ইন্স্যুরেন্স, পাইনিয়র ইন্স্যুরেন্স, পিপলস লিজিং অ্যান্ড ফিন্যান্স সার্ভিসেস, পাওয়ার গ্রিড, প্রগতি ইন্স্যুরেন্স, প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্স, প্রিমিয়ার সিমেন্ট, প্রিমিয়ার লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স, প্রাইম ব্যাংক, প্রাইম ফাইন্যান্স, প্রাইম ইন্স্যুরেন্স, প্রাইম ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্স, প্রভাতি ইন্স্যুরেন্স, পূবালী ব্যাংক, পূরবী জেনারেল ইন্স্যুরেন্স, রূপালি ইন্স্যুরেন্স, আরএন স্পিনিং, রিপাবলিক ইন্স্যুরেন্স, আরএকে সিরামিক, কাশেম ইন্ডাস্ট্রিজ, সায়হাম কটন, সায়হাম টেক্সটাইল, সামিট অ্যালায়েন্স ফোর্ট, সন্ধানী ইন্স্যুরেন্স, সামিট পাওয়ার, সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক, সিঙ্গার বাংলাদেশ, সিমটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ, সোনার বাংলা ইন্স্যুরেন্স, সাউথইস্ট ব্যাংক, শাহজিবাজার পাওয়ার, স্কয়ার টেক্সটাইল, স্ট্যার্ন্ডাড ব্যাংক, সান লাইফ ইন্স্যুরেন্স, তাল্লু স্পিনিং, তিতাস গ্যাস, তসরিফা ইন্ডাস্ট্রিজ, তু-হাই নিটিং অ্যান্ড ডাইং, ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক, ইউনিয়ন ক্যাপিট্যাল, ইউনাইটেড এয়ার, ইউনাইটেড ইন্স্যুরেন্স, উত্তরা ব্যাংক, উত্তরা ফাইন্যান্স, জাহিন স্পিনিং, জাহিন টেক্স ও ইয়াকিন পলিমার।
এ বিষয়ে ডিএসই’র ব্রোকারদের সংগঠন ডিবিএ’র সভাপতি মোস্তাক আহমেদ সাদেন বলেন, পুঁজিবাজারে সংকটের মূল্য কারণ ব্যাংকিং খাত ও আইসিবি’র বিনিয়োগ পরিস্থিতি। ব্যাংক এক্সপ্লোজার লিমিট ইস্যুতে বাংলাদেশ ব্যাংকের অনমনীয় সিদ্ধান্ত বাজারের পরিস্থিতিকে দিন দিন খারাপ করছে।
তিনি বলেন, আইসিবিকেও চোখে চোখে রেখেছে। যার কারণে বাজারের দূরাবস্থায়ও সাপোর্ট দিতে পারছে না প্রতিষ্ঠানটি।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ও অর্থনীতিবিদ আবু আহমেদ বলেন, নির্বাচনী বছরকে সামনে রেখে বছরের শুরুতে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে বাড়তি প্রত্যাশা ছিল। কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতিতে পুঁজি বাঁচিয়ে রাখাই কষ্টকর।
তিনি বলেন, অর্থনীতির হৃদপিণ্ড পুঁজিবাজার। পুঁজিবাজারের সূচক ও লেনদেনে অর্থনীতির প্রতিচ্ছবি ফুটে উঠে। তাই নির্বাচনী বছরে সরকারের উচিত পুঁজিবাজারকে দৃঢ় ও শক্তিশালী করা।pb/ns/-



এ সংবাদটি 35 বার পড়া হয়েছে.
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •   
  •   
  •   
  •   
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*