সিসিক নির্বাচন: আওয়ামী লীগের পাশে নেই জাপা

সিসিক নির্বাচন: আওয়ামী লীগের পাশে নেই জাপা

জুমান আহমেদ :: সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনে নিজেদের ঘর যখন ঘোচাচ্ছে বিএনপি, তখন শঙ্কা কাজ করছে আওয়ামী লীগ পরিবারে। বৃহস্পতিবার বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী বদরুজ্জামান সেলিম নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত জানালেও এখনো মহাজোটের শরীক জাতীয় পার্টি আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পক্ষে মাঠে নামেনি। আনুষ্ঠানিক প্রচারণার ০০ তম দিনেও আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের সমর্থনে প্রচারণা জাতীয় পার্টিকে নামাতে আলোচনা শুরু করেছে আওয়ামী লীগ। জাতীয় পার্টি নেতারা বলছেন, সিসিক নির্বাচনের প্রচারণা বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। দু’একদিনের মধ্যে প্রচারণায় নামা কিংবা না নামা নিয়ে সিদ্ধান্ত হতে পারে।
তফসিল ঘোষণার পর থেকে সিসিক নির্বাচন নিয়ে জাতীয় পার্টি কোনো কার্যক্রমে নেই। মহাজোটের অন্যান্য শরীকদলগুলো নৌকা প্রতীকের পক্ষে প্রচারণায় মাঝে মাঝে অংশ নিলেও জাতীয়পার্টি এ ব্যাপারে উদাসীন। মেয়র এমনকি কাউন্সিলর প্রার্থীও নেই তাদের। এক সময়ে একক ভাবে নয় বছর দেশ শাসন করলেও বর্তমানে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে মহাজোটে রয়েছে দলটি। ২০০১ সালে সিলেট সিটি করপোরেশন গঠনের পর দুই মেয়াদে মেয়র প্রার্থী দিলেও এবারের নির্বাচনে দলটি কোন মেয়র প্রার্থী দেয়নি।
গত ১৩ জুন সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনের তফশিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। তফশিল ঘোষণা অনুযায়ী আগামী ৩০ জুলাই সিটি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ১০ জুলাই থেকে আনুষ্ঠানিক প্রচারণা শুরু হয়।
সিসিক নির্বাচনে অন্যান্য রাজনৈতিক দল বিএনপি, আওয়ামী লীগ, জামায়াত, বাসদ, ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলন তাদের প্রার্থী ঘোষণা করলেও এসবে নেই জাতীয় পার্টি। ফলে নির্বাচনে নীবর ভূমিকা পালন করছেন সিলেট জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীরা।
নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট থাকলেও ১৪ দলের প্রার্থী হিসেবে মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বদর উদ্দিন আহমদ কামরানকে ঘোষণা করা হয়। বর্তমানে নগরীর ওয়ার্ডে পাড়া মহল্লায় সিটি নির্বাচনী আমেজ। জোট-মহাজোটের পক্ষে প্রচার-প্রচারণায় বিভিন্ন দল অংশ গ্রহণ করলেও মহাজোটের প্রার্থী বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের পক্ষে জাতীয় পার্টিকে মাঠে দেখা যায়নি। অন্যান্য দল মাঠে-ঘাটে, রাস্তায়, পাড়া-মহল্লায় থাকলেও জাতীয় পার্টি না থাকার কারণ নয় বছরে সিলেটের জাতীয় পার্টি পাওয়া না পাওয়ার হিসাব কষছেন তারা। মহাজোট সরকারের নয় বছরে সিলেট জাতীয় পাটিকে অমূল্যায়ন, অসহযোগিতা ও সরকারের বিভিন্ন স্তরে জাতীয় পার্টিকে অংশগ্রহণ না করার কারণ বলে মনে করেন অনেকে। আর এর সুযোগ নিতে পারেন বিএনপি-জামায়াতের প্রার্থীরা। কিন্তু জাপার এ দুরে থাকার নীতির প্রভাব ১৪ দলের প্রার্থীর উপরে পড়বে বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করেন। অন্যদিকে এটাকে মহাজোটে ভাঙ্গন বলেও মনে করেন অনেকে।
জাতীয় পার্টি সূত্র জানিয়েছে, মহাজোটে থাকার কারণে বিভিন্ন সময়ে সুযোগ সুবিধা পাওয়ার দাবিদার তারা। এছাড়া জাতীয় সংসদে প্রধান বিরোধী দলও সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের নেতাকর্মীরা। টানা ২ মেয়াদে ক্ষমতায় থাকলেও শুধুমাত্র ভোটের সময় হলেই তাদের ডাক পড়ে। আর সকল ধরণের সুবিধা আওয়ামী লীগের নেতা, পাতি নেতারা ভোগ করে থাকেন। এবার নির্বাচনে মহাজোটের প্রার্থী দেওয়া হলেও জাতীয় পার্টির সাথে কোনো ধরণের আলোচনা করা হয়নি। তাই ক্ষোভে নেতাকর্মীরা সিসিক নির্বাচন থেকে নিজেদের দুরে সরিয়ে রেখেছেন।
সিলেট মহানগর জাপার আহবায়ক ইয়াহইয়া চৌধুরী এহিয়া এমপি বলেন, মহাজোটের নেতৃত্বাধীন জাতীয় পার্টি। সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচন নিয়ে এখনও আমাদের অংশগ্রহণ নিয়ে কোন সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে দু-একদিনের মধ্যে এ নিয়ে সিদ্ধান্ত হবে।
সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন বলেন, জাপা মহাজোটের অংশ। সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আমাদের সাথে জাপা আন্তরিক রয়েছে। তাদের সাথে আমাদের আলাপ-আলোচনা চলছে। জোটে কোনো ভাঙ্গন নয়, দু-একদিনের মধ্যে তারাও মাঠে নামবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।



এ সংবাদটি 147 বার পড়া হয়েছে.
Spread the love
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •   
  •   
  •   
  •  
  •  
    2
    Shares
  •  
    2
    Shares
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*