চার লেনে উন্নিত হতে যাচ্ছে, সিলেট শহরের বাইপাস-গ্যারিসন লিংক টু শাহপরান সেতুঘাট রাস্তা

প্রকাশিত: ৯:২৫ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৬, ২০১৭

চার লেনে উন্নিত হতে যাচ্ছে, সিলেট শহরের বাইপাস-গ্যারিসন লিংক টু শাহপরান সেতুঘাট রাস্তা

নিউ সিলেট রিপোর্ট ::: সিলেট শহরের বাইপাস-গ্যারিসন লিংক টু শাহপরান সেতুঘাট রাস্তা চার লেনের মহাসড়কে উন্নীত হচ্ছে। এজন্য ২৩৫ কোটি ৪৬ লাখ টাকার একটি প্রকল্প প্রস্তাব করা হয়েছে পরিকল্পনা কমিশনে। প্রক্রিয়াকরণ শেষে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদ (একনেক) অনুমোদন পেলে ২০১৮ সালের জুনের মধ্যে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে যৌথভাবে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর এবং বাংলাদেশ সেনাবাহিনী।
সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় সূত্র জানা যায়, বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর নবগঠিত ১৭ পদাতিক ডিভিশনে একটি এডুকেশন ভিলেজ নির্মাণের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে যাতে একটি ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ, আর্মি ইন্সটিটিউট অব বিজনেস অ্যাডমিনেস্ট্রেশন, ক্যান্টনমেন্ট ইংলিশ স্কুল ও কলেজ এবং সমাজের প্রতিবন্ধী শিশুদের জন্য ঢাকা প্রয়াস স্কুলের আদলে সিলেট প্রয়াস সিলেট নামে একটি স্কুল নির্মাণ করা হবে।
এ সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নতুন সেনানিবাসের পার্শ্ববর্তী এলাকা মুরাদপর, রুস্তমপুর ও হাতিম নগর মৌজায় বসবাসরত স্থানীয় ছাত্র ছাত্রীদের অধ্যয়নের সুযোগ ছাড়াও বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার বিপুল সংখ্যক জনবলের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে।
কিন্তু বর্তমানে রুস্তমপুরে বসবাসকারী জনসাধারণের সেনানিবাসে আগমনের জন্য সিলেট কানাইঘাট রাস্তাটি ব্যবহার করতে হয়। এ রাস্তাটি সরু এবং বর্তমানে সামান্য ট্রাক বৃদ্ধি পেলেই যানবাহন চলাচলে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়।
অন্যদিকে, সুরমা নদী হতে পিরেরচক গ্রাম হয়ে মুরাদপুর পর্যন্ত কোনো পাকা সড়ক না থাকায় স্থানীয় জনগণ বর্ষাকালে পণ্যদ্রব্য বহনে বিপুল পরিমাণে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে।
এ প্রেক্ষিতে শাহ পরাণ ব্রিজ ঘাট থেকে সিলেট শহর বাইপাস পর্যন্ত ২ দশমিক ৫০ কিলোমিটার এবং সিলেট শহর বাইপাস থেকে সিলেট গ্যারিসন হয়ে সিলেট-কানাইঘাট সড়ক পর্যন্ত ৪ কিলোমিটারসহ মোট ৬ দশমিক ৫০ কিলোমিটার সড়ক ৪ লেন মহাসড়কে নির্মাণের জন্য সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ হতে ২৪৫ কোটি ৪২ লাখ টাকা প্রাক্কলিত ব্যয়ে ২০১৬ সালের জুলাই হতে ২০১৮ সালের জুনের মধ্যে প্রকল্পটি বাস্তবায়নের জন্য প্রস্তাব করা হয়।
প্রস্তাবিত প্রকল্পের উপর ২০১৬ সালের ২৪ জুলাই প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটি (পিইসি) সভা অনুষ্ঠিত হয়। এই সভার সিদ্ধান্তে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ কর্তৃক উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাব (ডিপিপি) পুনর্গঠন করা হয়েছে। পুনর্গঠিত ডিপিপি অনুসারে প্রকল্পের প্রাক্কলিত ব্যয় ২৩৫ কোটি ৬৬ লাখ টাকা ।
প্রকল্পের প্রধান কার্যক্রমগুলো হচ্ছে-৯ দশমিক ৫০লাখ ঘনমিটার সড়কবাঁধ নির্মাণে মাটির কাজ, ৬ দশমিক ৫০ কিলোমিটার ফ্লেক্সিবল পেভমেন্ট নির্মাণ, ৪৮ মিটার আরসিসি বক্স কালভার্ট নির্মাণ, ৩১৫ মিটার আরসিসি পিসি গার্ডার সেতু নির্মাণ, ৬ দশমিক ১৮ কিলোমিটার মিডিয়ান নির্মাণ, ১৩ কিলোমিটার সাইড ড্রেন নির্মাণ, সৌন্দর্য বর্ধন ও সড়ক বাতি স্থাপন এবং নির্মাণকালীন রক্ষণাবেক্ষণসহ অন্যান্য কাজ সম্পন্ন করার সংস্থান রয়েছে।
এ বিষয়ে পরিকল্পনা কমিশনের ভৌত অবকাঠামো বিভাগের সদস্য জুয়েনা আজিজ পরিকল্পনা কমিশনের মতামত দিতে গিয়ে বলেন, প্রস্তাবিত সড়কটি নির্মাণ করা হলে সিলেট জালালাবাদ সেনানিবাসের বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর নবগঠিত ১৭ পদাতিক ডিভিশন এর সাথে পার্শ্ববর্তী এলাকা তথা সিলেট শহরের বিদ্যমান সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নততর এবং প্রকল্প এলাকার জনসাধারনের আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়ন হবে তাই প্রকল্পটি অনুমোদনযোগ্য।



এ সংবাদটি 655 বার পড়া হয়েছে.
Spread the love
  • 8
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •   
  •   
  •   
  •  
  •  
    8
    Shares
  •  
    8
    Shares
  • 8
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বশেষ শিরোনাম