বহুল প্রত্যাশিত সিলেটের কুমারগাঁও-বাদাঘাট-এয়ারপোর্ট সড়ক একনেকে অনুমোদন

প্রকাশিত: ১০:০৩ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৪, ২০২২

বহুল প্রত্যাশিত সিলেটের কুমারগাঁও-বাদাঘাট-এয়ারপোর্ট সড়ক একনেকে অনুমোদন

নিউ সিলেট রিপোর্ট : সিলেটবাসীর বহুল প্রত্যাশিত কুমারগাঁও-বাদাঘাট-এয়ারপোর্ট সড়ক চার লেনে উন্নীত করে একটি প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)। আজ মঙ্গলবার দুপুরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় ৭২৭ কোটি ৬৩ লাখ ২০ হাজার টাকা ব্যয় ধরে এই প্রকল্পটি অনুমোদন দেয়া হয়। প্রকল্পটি একনেকে উপস্থাপন করে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ। গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে যোগদেন প্রধানমন্ত্রী ও একনেক চেয়ারপারসন শেখ হাসিনা।
একনেক সভা শেষে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান জানান, সিলেটের কুমারগাঁও-বাদাঘাট-এয়ারপোর্ট সড়কটি চার লেনে উন্নীতকরণ প্রকল্পসহ ১০টি প্রকল্প আজ একনেকে অনুমোদন পেয়েছে। এসব প্রকল্পে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ১১ হাজার ২১১ কোটি ৪৪ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকারের তহবিল থেকে ১০ হাজার ৭১৩ কোটি ২৫ লাখ টাকা এবং বাস্তবায়নকারী সংস্থা থেকে ৪৯৮ কোটি ১৯ লাখ টাকা ব্যয় করা হবে। সিলেটের কুমারগাঁও-বাদাঘাট-এয়ারপোর্ট সড়ক প্রকল্পটি সড়ক ও জনপথ (সওজ) অধিদফতর বাস্তবায়ন করবে। যা আগামী ২০২৪ সালের জুনের মধ্যে প্রকল্পের কাজ শেষ হওয়ার কথা।
জানা যায়, কুমারগাঁও-বাদাঘাট-এয়ারপোর্ট সড়কটি গুরুত্বপূর্ণ জেলা মহাসড়ক। এই সড়কটি সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে যাতায়াতে একমাত্র বিকল্প সড়ক। এছাড়া, সড়কটি সিলেট নগরীর যানজট নিরশনের জন্য ও যানবাহনের ডাইভারশন হিসেবেও ব্যবহৃত হয়। এই সড়ক দিয়ে সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার ভোলাগঞ্জ পাথর কোয়ারি থেকে দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আসা পাথর বহনকারী ট্রাক যাতায়াত করে। তাছাড়া, সড়কটি সিলেট-সুনামগঞ্জ সড়ক হয়ে বাদাঘাট দিয়ে ওসমানী বিমানবন্দর সড়কের সাথে যুক্ত রয়েছে। ১২ কিলোমিটারের এই সড়কটি ২০১২-১৪ অর্থবছরে নির্মাণ করা হলেও পাথর বোঝাই ট্রাক যাতায়াতের ফলে বর্তমানে সড়কটির বেহাল দশা। যাতায়াতের অনুপযোগী সড়কটি হওয়ায় দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আসা যানবাহন বর্তমানে নগরীর আম্বরখানা, সুবিদবাজার হয়ে চলাচল করছে। এতে আম্বরখানা-এয়ারপোর্ট একটি মাত্র সড়ক হওয়ায় পাথর বোঝাই ট্র্রাক চলাচলের ফলে বিমানবন্দরের ভিআইপি যাত্রীসহ নগরবাসিকে ঘন্টার পর ঘন্টা যানজটে জীবনযাত্রা দুর্ভোগময় করে তুলেছে। এই সড়কে যানজট নিরসনে ট্রাফিক পুলিশকে প্রতিদিন হিমশিম খেতে হয়। এছাড়া, সড়ক দুর্ঘটনাও এই ব্যস্ততম সড়কে নিত্যদিনের সঙ্গি হয়ে দাড়িয়েছে। পরে গুরুত্বপূর্ণ এই সড়কটি সম্প্রসারণের জন্য সিলেটের রাজনৈতিক, সামাজিক ও ব্যবসায়ীসহ নগরবাসি সিলেট-১ আসানের সংসদ সদস্য ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে দাবি জানান। এর প্রেক্ষিতে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর অক্লান্ত পরিশ্রমে অবশেষে সড়কটি সম্প্রসারণের জন্য একনেকে প্রকল্প বাস্তবায় হলো। তবে, কুমারগাঁও-বাদাঘাট-এয়ারপোর্ট সড়কটিকে চার লেনে উন্নীত করা হলে পাথরবোঝাই ট্রাকসহ যানবাহন জাতীয় মহাসড়ক এন-২’তে সহজেই যাতায়াত করতে পারবে। এছাড়া, নগরীসহ বিমানবন্দরে যাতায়াতে যানজট কমবে। তাছাড়া, দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আসা ট্রাকের যানজটসহ দুর্ঘটানও কমে আসবে বলে সংশ্লিষ্টরা জানান।
এবিষয়ে সিলেট-১ আসনের সংসদ সদস্য ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিলেটের উন্নয়নে আন্তরিক। তিনি বলেন, কুমারগাঁও-বাদাঘাট-এয়ারপোর্ট সড়কটিকে চার লেনে উন্নীত হলে নগরীসহ বিমানবন্দরে যাতায়াতে যানজট কমে আসবে। আম্বরখানা-এয়ারপোর্ট সড়কে আর যানজট থাকবে না। এজন্য তিনি সিলেটবাসির পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান।



এ সংবাদটি 38 বার পড়া হয়েছে.
Spread the love
        
 
    

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বশেষ শিরোনাম