অবশেষে জাপানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী মারা গেলেন

প্রকাশিত: ৬:০৩ অপরাহ্ণ, জুলাই ৮, ২০২২

অবশেষে জাপানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী মারা গেলেন

নিউ সিলেট ডেস্ক : জাপানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবেকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। আজ জাপানের নারা শহরে নির্বাচনী প্রচারণায় বক্তব্য দেয়ার সময় এক বন্দুকদারী তাকে গুলি করে। এতে তার বুকে গুলি লাগলে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন তিনি। পরে তাকে পুলিশ উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করলে চিকিৎসারত অবস্থায় কয়েক ঘন্টা পর তিনি মারা যান। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৬৭ বছর। তবে, ধৃত হামলাকারিকে আটক করেছে পুলিশ।
বিষয়টি নিশ্চিত করে জাপানের গণমাধ্যম এনএইচকে জানিয়েছে, জাপানের নারা শহরে নির্বাচনী প্রচারণায় বক্তব্য দেয়ার সময় তাকে পেছন থেকে পর পর দুইবার গুলি করে এক বন্দুকদারী। তখন তিনি বক্তৃতার মাঝখানেই মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। এরপর তার রক্তক্ষরণ হয়। পুলিশ ওই হামলাকারীকে আটক করেছে বলে জানিয়েছে।
নির্বাচনী ওই সমাবেশ থেকে এনএইচকের সাংবাদিক জানান, জাপান পার্লামেন্টের উচ্চ কক্ষের নির্বাচনে একজন প্রার্থির সমর্থনে প্রচারণা চালনোর জন্য মি. আবে নারা শহরে গিয়েছিলেন। বেলা ১১টার দিকে শিনজো আবে যখন বক্তব্য দিচ্ছিলেন, তখন তিনি দুটি গুলির শব্দ শুনতে পান। পরে আবেকে মাটিতে পড়ে থাকতে দেখা যায়। এসময় পুলিশ এসে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়। হাসপাতালে নেবার পর থেকে মি. আবে’র কোন সাড়া পাওয়া যাচ্ছিল না। মি. আবেকে দুইবার গুলি করা হয় এবং দ্বিতীয় গুলিটি তার পিঠে আঘাত করে।
এদিকে, এঘটনার পর টোকিওর সাবেক মেয়র ওইচি মাসুজো এক টুইট বার্তায় বলেন, মি. আবে বর্তমানে কার্ডিওপালমোনারি অ্যারেস্ট অবস্থায় আছেন।
জাপানে কার্ডিওপালমোনারি অ্যারেস্ট বলতে আনুষ্ঠানিকভাবে মৃত্যু নিশ্চিত করার আগের অবস্থাকে বোঝানো হয়।
উল্লেখ্য, শনজো আবে জাপানের সবচেয়ে দীর্ঘস্থায়ী প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। স্বাস্থ্যগত কারণ দেখিয়ে ২০২০ সালে তিনি পদত্যাগ করেন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর শিনজো আবে ছিলেন সবচেয়ে কম বয়সী প্রধানমন্ত্রী। তিনি ২০০৬ সালে প্রথবারের মতো প্রধানমন্ত্রী হন। ২০১২ সালে তিনি ফের প্রধানমন্ত্রী হন। মি. আবে ধনাঢ্য রাজনৈতিক পরিবার থেকে এসেছেন। তার বাবা ছিলেন জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী। এছাড়া তার এক দাদা জাপানের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। তাছাড়া, বর্তমানে জাপানের ক্ষমতাসীন লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির রাজনীতিতে তার বড় প্রভাব রয়েছে। এই দলের বড় একটি অংশের নিয়ন্ত্রণ মি. আবের হাতে।
জাপানে বন্দুক হামলা খুবই বিরল ঘটনা। কারণ, সেখানে অস্ত্র বহন করা নিষিদ্ধ। এছাড়া জাপানে রাজনৈতিক ব্যক্তিদের টার্গেট করে হত্যা করার ঘটনাও খুব একটা দেখা যায় না।
২০০৭ সালে নাগাসাকি শহরের মেয়র ইচো ইতোকে গুলি করে হত্যা করেছিল গ্যাংস্টাররা। ১৯৬০ সালে জাপানের সোশালিস্ট পার্টির প্রধানকে বক্তব্য দেবার সময় গুলি করে হত্যা করে ডানপন্থীরা।



এ সংবাদটি 40 বার পড়া হয়েছে.
Spread the love
        
 
    

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বশেষ শিরোনাম

অনুসন্ধান ক্যালেন্ডার

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০